Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

ভিক্ষা করার কী টেকনিক এই ভিক্ষুকের? মাসিক আয় ৭৫ হাজার

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

বর্তমান দিনে যেখানে বেকারত্বের সংখ্যা হু হু করে বাড়ছে, সেখানে মাসে মাত্র ১০০০০টাকা রোজগারের জন্য বহু মানুষকে মাথার ঘাম পায়ে ফেলতে হয়। দিনমজুরদের দৈনিক রোজ মাত্র ৩০০ থেকে ৫০০ টাকার মধ্যে থাকে। কিন্তু কোনো পরিশ্রম না করেই এই বিশেষ ভিক্ষুকের মাসিক আয় জানলে রীতিমতো চমকাবেন। রাস্তাঘাটে ট্রেনে বাসে প্রচুর ভিক্ষুক আমরা দেখতে পাই প্রায়ই। ভিক্ষা হিসেবে দু পাঁচ টাকার খুচরো পয়সা দেয় সবাই। অনেকে আবার সহানুভুতির সাথে দশ কুড়ি টাকার নোট দিয়ে দেন।

ছোট ছোট শিশুদের উপর মানসিক এবং দৈহিক অত্যাচার করা এবং তাদেরকে ভিক্ষুকে পরিণত করা যদিও নতুন ঘটনা নয়। কিন্তু সেখানে শিশুরা অসহায় থাকে। কিন্তু এই ভদ্রলোক নিজের বুদ্ধি দ্বারা ভিক্ষা করেন, অথচ শারীরিকভাবে সম্পূর্ণরূপে তিনি সুস্থ। ল্যাপটপ চালান সিদ্ধহস্তে।

ভরত জৈন, ভিক্ষা করে সত্তর লক্ষ টাকা দিয়ে কিনেছেন দুটো ফ্ল্যাট। বাড়িতে রয়েছে অনেকগুলি কাজের লোক এবং নিজস্ব গাড়ি। ফ্ল্যাট সাজানো দামি দামি আসবাব পত্র দিয়ে। তার মতে এই পেশা একেবারেই লজ্জার নয়, বরং তাকে শিখতে হয়েছে ভিক্ষা করার অভিনব কৌশল। নিজে গাড়ি চালান না, রোজ গাড়ির ড্রাইভার ভিক্ষা করার স্থান থেকে একটু দূরে তাকে নামিয়ে দেন। এই পেশাকে তিনি একটি চাকরি মতোই পেশা বলে মনে করেন। আপাতত তিনি ভাবছেন আরেকটি গাড়ি কেনার কথা। ভিক্ষা করেই তিনি মাসে আয় করেন ৭৫ হাজার টাকা।

আমাদের দেশের সরকারি অফিসের বড় বড় উচ্চপদস্থ কর্মীরা এই টাকা পায় কিনা সন্দেহ। এ যেন আজব স্থানের বিচিত্র এক কাহিনি। যদিও ভিক্ষুকদের এই মোটা অঙ্কের ইনকামের ঘটনা এর আগেও অনেকবার সংবাদ মাধ্যমগুলি শিরোনামে এসেছে। একবার ভাবুনতো কাকে বিশ্বাস করবেন ? তাহলেতো ধরে নিতেই হয়, যারা সত্যিই অসহায় তারা অনেকেই শুধুমাত্র ভিক্ষার কৌশল জানেন না বলে কারোর সহানুভূতি পাননা।

News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন প্রথম কলকাতা অ্যাপ