Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

বিশ্বের ক্ষুদ্র দেশ কোনটা জানেন? জনসংখ্যা মাত্র তিন তাঁদেরও আছে দেশের পতাকা!

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

বিশ্বের ক্ষুদ্র একটি দেশ , জনসংখ্যা মাত্র তিনজন। অথচ অনেকেই এটিকে রাষ্ট্র বলে মনে করেন। রাষ্ট্র হওয়ার জন্য উপযুক্ত বহু শর্ত এখানে প্রযোজ্য হয়নি। কিন্তু বছরের পর বছর এই স্থান মাইক্রোনেশিয়া বলে পরিচিতি লাভ করে আসছে। এবার আপনি হয়তো মনে মনে ভাবছেন, এ তো পুরো গাঁজাখুরি ব্যাপার। একেবারেই অবাস্তব সব কাহিনী। কিন্তু এটাই সত্যি। আসল গল্পটা জানলে আপনি অবাক হতে বাধ্য।

সমুদ্রের উপর ভাসছে ৫৫০বর্গমিটার জুড়ে ছোট্ট একটি দেশ। জনসংখ্যা মাত্র তিনজন, যাদের নিজস্ব পতাকা রয়েছে, মুদ্রা রয়েছে এবং তার সাথে রয়েছে পাসপোর্ট। এই ছোট্ট দেশটির কোন মাটি নেই, পুরোটাই ইস্পাত দিয়ে তৈরি। সিল্যান্ড নামেই অধিক পরিচিত এই স্থানটি। ইংল্যান্ডের উত্তর উপকূল থেকে ১০কিলোমিটার দূরে সাগরে ভাসছে একটি ঘর নিয়ে একটি দেশ। সেটি সেই দেশের রাজধানী এবং রাজপ্রাসাদ। রাজধানীর নাম রাখা হয়েছে HM Fort Roughs ।

এবার আসা যাক আসল গল্পে। একটি দেশ বা রাষ্ট্র হওয়ার জন্য অনেকগুলি শর্ত পূরণ করতে হয় বা বলতে গেলে অনেক নিয়ম কাজ করে। যার কোনটাই এখানে নেই। আসলে এটি একটি সামুদ্রিক বন্দর ছিল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় জার্মানিরা যেকোনো সময় ইংল্যান্ড আক্রমণ করতে পারে বলে আশঙ্কা করেছিল, তৎকালীন সময়ের ইংল্যান্ড সরকার। এখান থেকেই নানারকম পরিকল্পনা করা হতো এবং যুদ্ধজাহাজের ওপর নজরদারি রাখা হতো। সেই সময় এই স্থানটির নাম দেওয়া হয় মউনশেল সি ফোর্ট । এমনকি এখান থেকেই পরিচালনা করা হতো বিভিন্ন আক্রমণাত্মক কাজের। কিন্তু যুদ্ধ শেষে এটির প্রয়োজন যখন ফুরিয়ে যায় তখন বন্দরটিকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়।

১৯৬৭ সালে ইংল্যান্ডের এক নাগরিক রয় বেটস এই স্থানটির স্বত্বাধিকার কিনে নেন। নিজের পরিবার নিয়ে এখানে বসবাস শুরু করেন এবং সেটিকে একটি স্বাধীন মাইক্রো রাষ্ট্র হিসেবে ঘোষণা করে দেন। কিন্তু তার এই সিদ্ধান্তে পৃথিবীর কোন দেশ সায় দেয়নি। আবার কেউ বিরোধিতাও করেনি । ফলে মানুষ একে রাষ্ট্র বলে ভাবতে শুরু করে এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় এই তথ্য নিয়ে বারবার ভাইরাল হতে থাকে। ২০০২ সালে ভাসমান পরিত্যক্ত বন্দরটির জনসংখ্যা ছিল ২৭ জন, বর্তমানে তা এসে দাঁড়িয়েছে মাত্র তিনজনে।

News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন প্রথম কলকাতা অ্যাপ