Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

প্যান্ডেল হপিংয়ে চা -কফি? সাবধান বিপদ থেকে !

1 min read

।।প্রথম কলকাতা।।

পুজোর দিন তো ঘনিয়ে এলো। বলা চলে দরজায় কড়া নাড়ছে। মাত্র কয়েকটা দিনের অপেক্ষার পর সেই মহেন্দ্রক্ষণ । আপামর বাঙালি মেতে উঠবে প্রধান ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপুজোয়। কিন্তু দুর্গাপুজো এলেই তো আর হল না। নিজেকে ফিট এবং সুস্থ সবল রাখা তো জরূরী তাই নয় কি ? শরীর সুস্থ না রাখলে যে পুজোর আনন্দটাই মাটি হয়ে যাবে। পুজো পুজো আসছে এই আনন্দ টাই ভালো। না হলে পুজোর দিনে নিজেদের অসাবধানতার কারণে নিজেরাই ডেকে আনবেন ঘোর বিপদ।

পুজো মানেই মন্ডপে মন্ডপে ঠাকুর দেখা হই হুল্লোড় আর আনন্দ। তার সাথে চলে জমিয়ে খাওয়া দাওয়াও। কিন্তু মনে রাখতে হবে শরীর সুস্থ ও সবল রাখতে কিছু খাবার নিজেদেরকেই ত্যাগ করতে হবে। অনেকেই বলেন চা ও কফি শরীরের ক্লান্তি দূর করতে মোক্ষম। পুজোয় ঘুরে বেড়ানোর মাঝে এক কাপ চা কিংবা কফি খেলেই কেল্লাফতে। তবে এই ভাবনায় অনেকের ভুল । চা ও কফি পান করে নিজের বিপদ ডেকে আনবেন নিজেরাই। যা ঘুণাক্ষরেও টের পাবেন না কেউই।

চা কিংবা কফির মধ্যে থাকে ক্যাফেইন। যা আমাদের নার্ভকে ক্ষতিগ্রস্ত করে দেয়। এছাড়াও কাজের ফাঁকে হোক সারাদিনে দু চার কাপ কফি অনেকেই খেয়ে ফেলেন। কিন্তু স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা এ বিষয়ে বলছেন সারাদিনে দু কাপের বেশি কফি খাওয়া যাবে না। সারাদিনে দু,এক কাপের বেশি কফি পান করা শরীরের পক্ষে সুবিধাজনক  নয় বরং একটানা বেশি কফি পানের অভ্যাস বজায় থাকলে হতে পারে নানা শারীরিক সমস্যা, কমে যেতে পারে ঘুমের পরিমাণ, বাড়তে পারে মানসিক চাপ। ফলে  কফি পানের যেমন প্রয়োজন আছে এ কথা সত্য কিন্তু তা প্রয়োজন বুঝে।

অতিরিক্ত ক্যাফেইন গ্রহণে অস্তিরতা দেখা দেয়। এই সমস্যা কমাতে চাইলে চা পানের পরিমাণ কমানো উচিত এবং সাধারণ চায়ের পরিবর্তে স্বাস্থ্যকর ভেষজ চা, যেমন- ক্যামোমাইল চা বা গ্রিন টি পান করার পরামর্শ দিচ্ছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। উল্লেখ্য,
অ্যাসিড রিফ্লাক্স’ অর্থাৎ পাকস্থলির অ্যাসিড খাদ্য নালীর দিকে ঠেলে দেওয়ার অন্যতম কারণ হতে পারে অতিরিক্ত চা পান করা। চায়ের কষভাব হজমে গোলযোগ সৃষ্টি করে। তাই পুজোর কটা দিন চা ও কফি পান করা থেকে বিরত থাকুন

News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন প্রথম কলকাতা অ্যাপ

Categories