Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

পুরোহিতের পর্নে আসক্তি! জট কাটছে দিল্লির ক্যান্টনমেন্ট ধর্ষণ কাণ্ডের

1 min read

।।প্রথম কলকাতা।।

ভারতের ইতিহাসে ধর্মের নামে কারচুপি নতুন কোনও বিষয় নয়। পাশাপাশি ধর্মীয় গুরু বা বিভিন্ন মন্দিরের পুরোহিতদের যৌন নির্যাতন বা ধর্ষণে জড়িয়ে পড়ার অভিযোগও নতুন কিছু নয়। ধর্মের বাতাবরণে থাকলেও কামই এদের কাছে পরম মোক্ষ। আর এই ভেকধারী ধার্মিকদের শিকার হন সাধারণ মহিলা থেকে নাবালিকারাও। সম্প্রতি দেশের রাজধানীর ক্যান্টমেন্ট এলাকায় ন’বছরের এক কিশোরীর মৃত্যুতে নাম জড়িয়েছে এক পুরোহিতের। অভিযোগ, পুরোহিত রাধেশ্যাম ধর্ষণ করার পর খুন করে দেহ পুড়িয়ে দিয়েছে। যথারীতি এ অভিযোগ মানতে চাননি অভিযুক্ত। কিন্তু তদন্তে উঠে আসা কিছু প্রমাণ পুরোহিতের বিরুদ্ধেই আঙুল তুলছে। দিল্লির ক্যান্টনমেন্ট এলাকায় ৯ বছরের কিশোরীর রহস্য মৃত্যুর কিছুটা হলেও জট খুলল।

এ মামলায় নতুন তথ্য প্রমাণ সামনে আনল পুলিশ। চার্জশিটে দেওয়া এই নতুন তথ্য প্রমাণ অনুযায়ী, দমবন্ধ হয়ে হওয়ার কারণে মৃত্যু হয়েছে ওই নাবালিকার। এর আগে কুলার থেকে তড়িদাহত হয়ে মৃত্যুর খবর জানা গেলেও এদিন জানা গিয়েছে, ওই নাবালিকার মৃত্যুর সময় কুলারে কোনও কারেন্টই ছিল না। পাশপাশি পরীক্ষা করা হয়েছে প্রধান অভিযুক্ত পুরোহিত রাধেশ্যামের ফোনের ব্রাউসিং হিস্ট্রিও। সেখান থেকে অবাক করা তথ্য উঠে এসেছে। ব্রাউসিং হিস্ট্রি অনুযায়ী অভিযুক্ত পুরোহিতের পর্নে আসক্তি ছিল। রাধ্যেশামের মোবাইলে ১৩০০টিরও বেশি পর্ন সাইটের ব্রাউসিং হিস্ট্রি রয়েছে।

ঠিক কী হয়েছিল ?


চলতি বছরের ২ আগস্ট ন’বছরের নাবালিকাকে ধর্ষণ করে দেহ পুড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল এক পুরোহিত-সহ চার ব্যক্তির বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত চার জনকেই গ্রেফতার করে পুলিশ। সেই সঙ্গে তদন্তও চালিয়ে যাচ্ছিল পুলিশ। চলছিল তদন্ত। এদিকে, নাবালিকার পরিবারের তরফ থেকে বার বার ধর্ষণের অভিযোগ তোলা হচ্ছিল। এরপরেই বিষয়টির পুরোদমে তদন্ত শুরু করে পুলিশ। তৈরি করা হয় চার্জশিট। পুলিশের থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, ওই নাবালিকার বাবা-মায়ের দারিদ্রতা ও নিরক্ষর হওয়ার সুযোগ নিতে চেয়েছিল ওই পুরোহিত। টাকা দিয়ে মুখও বন্ধ করাতে চেয়েছিল। এমনকী নিজের অপরাধ ঢাকতে মেয়েটির মৃত্যু কুলারে কারেন্ট খেয়ে হয়েছে বলে জানিয়েছিল ওই পুরোহিত।

তড়িঘড়ি প্রমাণ লোপাটের জন্য মেয়েটিকে পুড়িয়ে দেওয়া হয়। সেই সময় নিজের ফোনটিও পুড়িয়ে দেয় অভিযুক্ত রাধেশ্যাম। আধপোড়া ফোনটি উদ্ধার করেছে পুলিশ। তদন্তের পর পুলিশ ওই নাবালিকার মৃত্যুর কারণ হিসাবে জানিয়েছে, পুরোহিত রাধেশ্যাম যখন শিশুটিকে ধর্ষণ করছিল, তখন অন্য অভিযুক্ত কুলদীপ সিংহ নাবালিকার হাত ধরে ছিল। রাধেশ্যাম মেয়েটির মুখ নিজের হাত দিয়ে চেপে রেখেছিল। সেই কারণেই মৃত্যু হয় ওই নাবালিকার। এই ঘটনায় অভিযুক্ত চারজন বর্তমানে পুলিশি হেফাজতে রয়েছে।

News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন প্রথম কলকাতা অ্যাপ

Categories