ভোট শতাংশ বাড়িয়ে উত্থান বিজেপির

রাজীব ঘোষ ; সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে ৪০ শতাংশের বেশী ভোট পেয়ে ১৮ টি আসন বাংলায় দখল করেছে ভারতীয় জনতা পার্টি।নির্বাচন বিশেষজ্ঞদের হিসাব অনুযায়ী রাজ‍্যে পঞ্চায়েত নির্বাচনে পাওয়া ২৭ শতাংশ ভোট বেড়ে গিয়ে যদি ৪৫ শতাংশ হয়,তাহলে বাংলায় ২২ টি আসন পাবে বিজেপি।কিন্তু এই ১৮ শতাংশ ভোট জোগাড় করা যথেষ্ট কঠিন কাজ বিজেপির পক্ষে।তবে সেই ধারণাকে ভুল প্রমাণিত করে বিজেপি তাদের ভোট বাড়িয়ে নিয়েছে অনেকটাই।

এবারের নির্বাচনে রাজ‍্যের ১২৮ টি বিধানসভায় বিজেপি লিড পেয়েছে। ১৫৮ টি বিধানসভায় তৃণমূল কংগ্রেস লিড পেয়েছে।গ্রামীণ লোকসভা কেন্দ্রের হিসেবে ১৫ টিতে বিজেপি এবং ১২ টিতে তৃণমূল কংগ্রেস ভালো ফল করেছে।আর সংখ‍্যালঘু অধ‍্যুষিত ১২ টি কেন্দ্রের মধ্যে ৯ টিতে ভালো ফল করেছে তৃণমূল।পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে তৃণমূল কংগ্রেসের অনেক নেতা কর্মীরা মুকুল রায়ের হাত ধরে বিজেপিতে যোগদান করেছিল।

পঞ্চায়েত নির্বাচনে মনোনয়ন জমা থেকে ভোট পর্ব পর্যন্ত বিভিন্ন ভাবে সন্ত্রাস হয়েছে বাংলায়।২০১৩ সালের পঞ্চায়েত নির্বাচনে বিজেপি ৩ শতাংশ আসনে জয়ী হয়েছিল।সেখানে ২০১৮ সালে তা বৃদ্ধি পেয়ে ২৭ শতাংশে গিয়ে পৌঁছেছে।তৃণমূল কংগ্রেসের বন্ধুরা দলে থেকে মুকুল রায়কে সাহায্য করেছে সেটা এই হিসেবেই প্রমাণিত। ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি ১৭ শতাংশ ভোট পেয়ে বাংলায় ২ টি আসন পায়।২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি ১২.২৫ শতাংশ ভোট পেয়েছিল।২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে ৪০ শতাংশের বেশি ভোট পেয়ে ১৮ টি আসন দখল করে।

২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেস ৪৪.৯১ শতাংশ ভোট পায়।আবার ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের ভোট কমে গিয়ে ৪৩ শতাংশ হয়।অর্থাৎ মাত্র ২ শতাংশ ভোট কমে গিয়ে ১২ টি আসন কম হয়েছে তৃণমূলের।

রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, লোকসভা নির্বাচনে গেরুয়া শিবিরের এই বৃহৎ উত্থান তৃণমূল কংগ্রেসের রাজনীতির পক্ষে যথেষ্ট অসুবিধার সৃষ্টি করতে পারে।কারণ বিধানসভা নির্বাচনের আগে এই অবস্থা তৃণমূল কীভাবে ঠিক করে সেটা তাদের কাছে এক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *